হোম পৃষ্ঠা / চাটখিল / নোয়াখালী জেলার ক্ষুদ্রতম উপজেলা

নোয়াখালী জেলার ক্ষুদ্রতম উপজেলা

চাটখিল বাংলাদেশের নোয়াখালী জেলার অন্তর্গত একটি উপজেলা। আয়তনের দিক থেকে নোয়াখালী জেলার ক্ষুদ্রতম উপজেলা/থানা হিসেবে ১৯৭৭ সালের ২রা ফেব্রুয়ারী চাটখিল থানা প্রতিষ্ঠিত হয়। চাটখিল বর্তমানে নোয়াখালী’র ১০টি পৌরসভার একটি, ১৯৯৫ সালের ১ জানুয়ারি চাটখিল পৌরসভা হিসেবে এর কার্যক্রম শুরু করে।
ভৌগোলিক অবস্থান:উত্তরে কুমিল্লা জেলার মনোহরগঞ্জ উপজেলা, দক্ষিণে বেগমগঞ্জ উপজেলা, পূর্বে সোনাইমুড়ী উপজেলা এবং পশ্চিমে লক্ষিপুর উপজেলা। ০৯ টি ইউনিয়ন ও ১ টি পৌরসভা নিয়ে গঠিত এই উপজেলা। ইউনিয়নগুলো হল সাহাপুর, রামনারায়নপুর, পরকোট, বদলকোট, মোহাম্মদপুর, পাঁচগাও, হাটপুকুরিয়া, নোয়াখলা, খিলপাড়া। একমাত্র পৌরসভা টি হল চাটখিল পৌরসভা.
%e0%a6%ad%e0%a7%81%e0%a6%aa%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%95%e0%a7%83%e0%a6%a4%e0%a6%bf
প্রশাসনিক এলাকা:১৭০০ বর্গ কিলোমিটার এলাকার সমন্বয়ে গঠিত চাটখিল পৌরসভা। এছাড়া চাটখিল উপজেলা ৯টি ইউনিয়নের সমন্বয়ে গঠিত, ইউনিয়ন গুলো হচ্ছে: বদলকোর্ট, খিলপাড়া, নোয়াখলা, পরকোট, সাহাপুর, চাটখিল, মোহাম্মদপুর, পাঁচগাঁও এবং রামনারায়ণপুর।
ইতিহাসঃ
এ থানার নামের উৎপত্তি সম্পর্কে নির্দিষ্ট ভাবে কিছু জানা যায়নি। জনশ্রুতি আছে, অতীতে এ এলাকা একটি বিল অর্থাৎ খিল ছিল (বিল শব্দটির অর্থ বিশাল খালি জায়গা, যা অব্যবহৃত খিল পড়ে আছে)। এ বিলের চাটপোকার অবস্থানের কারণে স্থানীয় অধিবাসীরা হুমকীর সম্মুখীন হয়েছিলেন। কালক্রমে এ বিল এলাকায় জনবসতি স্থাপন হয় এবং এলাকার নাম হয় চাটখিল।

চাটখিল উপজেলার জনসংখ্যার উপাত্তঃ
মোট জনসংখ্যা ২৯০৮৪৬; পুরুষ ১৪১০২৯, মহিলা ১৪৯৮১৭।
সম্প্রদায়সমূহ :
মুসলিম ২৮১৩৬৫ জন,
হিন্দু ৯৩০৯ জন,
বৌদ্ধ ১৩ জন,
খ্রিস্টান ১১৪ জন,
অন্যান্য ৪৫ জন.
শিক্ষাঃগড় হার ৬৫.৮০%; পুরুষ ৬৫.১৭%, মহিলা ৬৬.৩৬%। কলেজ ১, মাধ্যমিক বিদ্যালয় ২৭, প্রাথমিক বিদ্যালয় ১০৪, কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয় ৮, কিন্ডার গার্টেন ৪০, মাদ্রাসা ১৯।
উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান:
1. সপ্তগাঁও আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়
2. চাটখিল পাঁচগাও সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়
3. চাটখিল সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়
4. পরকোট দশঘরিয়া ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়
5. ভীমপুর উচ্চ বিদ্যালয়
6. সোমপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়
কলেজঃ
1. চাটখিল কামিল মাদ্রাসা
2. চাটখিল সরকারি মহাবিদ্যালয়
3. চাটখিল মহিলা মহাবিদ্যালয়।
%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a6%97%e0%a6%be%e0%a6%a8
পত্র-পত্রিকা ও সাময়িকি : দৈনিক: চাটখিল বার্তা ও সাপ্তাহিক: পূর্বশিখা।
সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান :লাইব্রেরি ৪, ক্লাব ১৩, সিনেমা হল ১, খেলার মাঠ ১২।
জনগোষ্ঠীর আয়ের প্রধান উৎস :কৃষি ২৯.৬৯%, অকৃষি শ্রমিক ২.০০%, শিল্প ০.৯২%, ব্যবসা ১৪.৭০%, পরিবহণ ও যোগাযোগ ৪.৫৫%, চাকরি ১৬.২১%, নির্মাণ ২.০০%, ধর্মীয় সেবা ০.৪৮%, রেন্ট অ্যান্ড রেমিটেন্স ২১.২৯% এবং অন্যান্য ৮.১৬%।
কৃষিভূমির মালিকানা :ভূমিমালিক ৬১.৯৮%, ভূমিহীন ৩৮.০২%। শহরে ৫৭.৭২% এবং গ্রামে ৬২.৫৮% পরিবারের কৃষিজমি আছে।
প্রধান কৃষি ফসল :ধান, ডাল, সুপারি, শাকসবজি।
বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় ফসলাদি :তিল, তিসি, সরিষা, মিষ্টি আলু, আউশ ও আমন ধান।
প্রধান ফল-ফলাদি :আম, কাঁঠাল, কলা, পেঁপে, নারিকেল, পেয়ারা, খেজুর, সুপারি।
মৎস্য, গবাদিপশু, হাঁস-মুরগির খামার :এ উপজেলায় নার্সারি, হাঁস-মুরগি ও গবাদিপশুর খামার আছে।

কৃতী ব্যক্তিত্তঃ
1. অধ্যাপক কবির চৌধুরি (জাতীয় অধ্যাপক ও বাংলা একাডেমীর চেয়ারম্যান)
2. অধ্যাপক মুনির চৌধুরি ( শহীদ বুদ্ধিজীবি)
3. ফেরদৌসি মজুমদার (অভিনেত্রী ও নাট্যনির্দেশক)
4. সিরাজুল ইসলাম (১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে চাটখিলের প্রধান কমান্ডার)
5. গাজী মাসীহুর রহমান, (মুক্তিযুদ্ধকালীন বৃহত্তর রামগঞ্জ থানা ডেপুটি কমান্ডার ও চাটখিল থানা আওয়ামীলীগ এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, বিভিন্ন সামাজিক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (মল্লিকার দিঘীরপাড় উচ্চবিদ্যালয় ,মল্লিকারদিঘীরপাড় প্রাথমিক বিদ্যালয়) প্রতিষ্টাতা)
6. শিরিন শারমিন (জাতীয় সংসদের স্পীকার)
7. মোঃ আশরাফুল আলম, পরিবেশকর্মী এবং সাংবাদিক (প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান সম্পাদক, বিডি এনভায়রনমেন্ট)
8. আবুল কালাম আজাদ, লেখক, কবি এবং কলামিস্ট (বাংলাদেশ সরকারের সাবেক নৌ-সচিব)
9. এডভোকেট ওজায়ের ফারুক, সুপ্রিম কোর্ট বার এসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি।

10. এডভোকেট মাহবুবুর রহমান
11. ডঃ ফজলে হোসেন, সাবেক ভিসি, চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।
12. ডঃ সামছুল করিম, ইউনিভার্সিটি অব এসেক্স, ইউকে।
13. ডঃ আনোয়ারুল কবির রুমি, চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।
14. বীর মুক্তিযদ্ধা শহীদ এ জি এম রুহুল আমিন
15. বীর মুক্তিযদ্ধা আরিফুর রহমান বেগ
16. বীর শ্রেষ্ঠ রুহুল আমীন
17. নাট্যকার মস্তফা সরোয়ার ফারুকী।

অর্থনীতিঃজনগোষ্ঠীর আয়ের প্রধান উৎস কৃষি ২৭.৩২%, অকৃষি শ্রমিক ২.০৬%, শিল্প ০.৬৩%, ব্যবসা ১৬.৪৬%, পরিবহণ ও যোগাযোগ ৩.৬০%, চাকরি ১৮.১৫%, নির্মাণ ১.২৯%, ধর্মীয় সেবা ০.৩৮%, রেন্ট অ্যান্ড রেমিটেন্স ১৪.৩৮% এবং অন্যান্য ১৫.৭৩%। হাটবাজার ও মেলা হাটবাজার ৩০, মেলা ২। সোনাইমুড়ি হাট, থানার হাট, কামারের হাট, নদনা হাট, কাশিপুর হাট, শান্তির হাট, লালমিয়ার হাট, জয়াগ বাজার, বজরা স্টেশন বাজার, মুসলিমগঞ্জ বাজার, সোনাপুর বাজার, বাংলা বাজার ও আমিশাপাড়া বাজার উল্লেখযোগ্য।
শিল্প ও কলকারখানা :চালকল, বরফকল, করাতকল, বিস্কুট কারখানা, ওয়েল্ডিং কারখানা।
কুটিরশিল্প :স্বর্ণশিল্প, লৌহশিল্প, মৃৎশিল্প, সুচিশিল্প, দারুশিল্প, বাঁশের কাজ, বেতের কাজ।
কৃষি:কৃষিভূমির মালিকানা ভূমিমালিক ৬০.৩৮%, ভূমিহীন ৩৯.৬৯%। প্রধান কৃষি ফসল ধান, সুপারি, সরিষা, ডাল, শাকসবজি। বিলুপ্ত বা বিলুপ্তপ্রায় ফসলাদি তিল, তিসি, অড়হর, চীনা। প্রধান ফল-ফলাদিব আম, কাঁঠাল, নারিকেল, কলা, জাম, পেয়ারা, পেঁপে, সুপারি।
প্রধান রপ্তানিদ্রব্য: ধান, নারিকেল, সুপারি, কলা।
বিদ্যুৎ ব্যবহার: এ উপজেলার সবক’টি ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন পল্লিবিদ্যুতায়ন কর্মসূচির আওতাধীন। তবে ৪৬.২৬% পরিবারের বিদ্যুৎ ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে।
প্রাকৃতিক সম্পদ : বাদলকুট ইউনিয়নের সপ্তগাঁও এলাকার প্রাকৃতিক গ্যাস।
পানীয়জলের উৎস :নলকূপ ৮৮.৪১%, ট্যাপ ২.৯৫%, পুকুর ৩.০৭% এবং অন্যান্য ৫.৫৮%। উপজেলার অগভীর নলকূপের পানিতে মাত্রাতিরিক্ত আর্সেনিকের উপস্থিতি প্রমাণিত হয়েছে।
স্যানিটেশন ব্যবস্থা: উপজেলার ৭০.৭২% (গ্রামে ৬৮.৮৮% ও শহরে ৮০.৫৬%) পরিবার স্বাস্থ্যকর এবং ১৯.৬০% (গ্রামে ২১.১২% ও শহরে ৮.৭২%) পরিবার অস্বাস্থ্যকর ল্যাট্রিন ব্যবহার করে। ১০.০৮% পরিবারের কোনো ল্যাট্রিন সুবিধা নেই।
স্বাস্থ্যকেন্দ্র :উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্র ১, পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র ৯, হাসপাতাল ৪।
প্রাকৃতিক দুর্যোগ :১৯৮৮, ১৯৯৮ ও ২০০৪ সালের বন্যা এবং ২০০২ সালের ঘূর্ণিঝড়ে উপজেলার গবাদিপশু ঘরবাড়ি ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়।
এনজিও :ব্র্যাক, আশা, কারিতাস, কেয়ার। [তৌহিদ হোসেন চৌধুরী] %e0%a6%9c%e0%a6%ae%e0%a6%bf%e0%a6%a6%e0%a6%be%e0%a6%b0-%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a7%9c%e0%a6%bf
মুক্তিযুদ্ধে চাটখিল উপজেলাঃমুক্তিযুদ্ধ আমাদের অহংকার, স্বাধীনতা আমাদের শ্রেষ্ঠ অর্জন । স্বাধীনতা শব্দটিকে আমাদের করতে চাটখিলবাসীর অবদান বিশাল । ১মার্চ জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিতঘোষনার সাথে সাথে সারা দেশের মতো চাটখিলও ফুঁসে ওঠে । বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চভাষণের পর পরই চাটখিলে শুরু হয়ে যায় মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি গ্রহণের কাজ । চলতে থাকেকর্ম পরিকল্পনা ।স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের নিয়েগঠিত হয় সংগ্রাম কমিটি ।২৫ মার্চ পাকিস্তানী বাহিনী ঘুমন্ত বাংগালীদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়লে ২৬ মার্চ বিকেলে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে বৈঠকে বসেন সংগঠকবৃন্দসহ অপরাপর নেতৃবৃন্দ। সংগঠকগনসহ অনেক প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ও প্রশিক্ষণবিহীন জনতাসীমানা অতিক্রম করে ভারতের ক্যাম্পে প্রশিক্ষণ গ্রহণ এবং বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে।দীর্ঘ যুদ্ধের পর পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী পরাজয় বরণ করে ও ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ অর্জিত হয় আমাদের স্বাধীনতা।
হোটেল ও আবাসনঃ
চাটখিল বাজারে অবস্থিত আজিজ সুপার মার্কেটে ফারহান আবাসিক হোটেল রয়েছে।
মোবাইলঃ-০১৭১৬-৫২৬২০৬
এবং একটি জেলা পরিষদ বাংলো রয়েছে। ৫ টি কক্ষে মোট ৮ জন অবস্থান করতে পারে।
মোবাইলঃ ০১৮১৪০৭৩৮২৮
যোগাযোগঃ
যোগাযোগ বিশেষত্ব পাকারাস্তা ৯৬.৫৪ কিমি, কাঁচারাস্তা ৭৩২.৩৯ কিমি। বিলুপ্ত বা বিলুপ্ত প্রায় সনাতন বাহন পাল্কি, ঘোড়ার গাড়ি, মহিষের গাড়ি।

সম্পর্কে Abu Bakar

আমি মানুষ,আমি মুসলমান,আমি বাঙ্গালি,আমি নোয়াখাইল্লা।

Check Also

নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলার পটভুমি

নোয়াখালী জেলার অন্তর্গত একটি উপজেলা।আয়তনের দিক থেকে নোয়াখালী জেলার ক্ষুদ্রতম উপজেলা হিসেবে ০১ আগষ্ট ১৯৮৩ …

Leave a Reply